সর্বশেষ
Sat. Apr 20th, 2024

এ ব্যাপারে কথা বলার জানতে চাইলে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সমবায় ও পল্লী উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী আবদুল ওয়াদুদের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। তবে এর আগে ঘর ভাঙার সময় তিনি প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ইজারা নেওয়ার সময় যে শর্ত দেওয়া রয়েছে, তার মধ্যে ভাঙার বিষয়টিও রয়েছে। ভবন একেবারে জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছিল। গায়ের ওপর ইট খুলে পড়ছিল। এখন তাঁরা সেই ইট দিয়ে একটি অস্থায়ী কার্যালয় করবেন। সবকিছু নিয়ম মেনেই করা হচ্ছে।

এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় করার জন্য ২০১৭ সালে শহরের সিটিহাট এলাকায় একখণ্ড জমি দিয়েছিলেন রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এনামুল হক। সেখানে একটি ভবনও করা হয়েছে। এনামুল হক এর আগে প্রথম আলোকে বলেছিলেন, সাধারণত জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় শহরতলিতে ভালো হয়। তিনি যেখানে জায়গা দিয়েছেন, সেটাই উপযুক্ত। যাঁরা অর্পিত সম্পত্তিতে কার্যালয় করতে যাচ্ছেন, তাঁরা মূলত রাজনৈতিক একটা ‘জেলাসি’ (ঈর্ষা) থেকেই এটা করছেন। তাঁর জানামতে, জেলা প্রশাসন কোনো দলকে কার্যালয় করার জন্য জমি দিতে পারে না। হয়তো কোনো ব্যক্তির নামে দিয়েছে।

By News 24

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *